বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২৩ এপ্রিল ১৯৭০
গল্প/কবিতা: ৫৮টি

সমন্বিত স্কোর

২.৯৫

বিচারক স্কোরঃ ১.৫২ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৪৩ / ৩.০

তর্ক শালীনতা

ঘৃণা সেপ্টেম্বর ২০১৬

অধিকার ষোলকলা

প্রায়শ্চিত্ত জুন ২০১৬

সহবত

উপলব্ধি এপ্রিল ২০১৬

ভয় (এপ্রিল ২০১৫)

মোট ভোট ১৯ প্রাপ্ত পয়েন্ট ২.৯৫ ভয় কাটিয়ে

দীপঙ্কর বেরা
comment ১৭  favorite ০  import_contacts ৫২৬
নবীতের খুব ভয় স্কুলে রেজাল্টের দিন যদি গিয়ে এবার সে তার নিজের পজিশন ধরে রাখতে পারে নি তাহলে মনে খুব কষ্ট পাবে । কেউ তাকে কিছু বলবে না কারণ সবাই জানে নবীত বেশ ভালই । খারাপ ভাবার প্রশ্নই নেই । তবুও নবীত একটু দেরিতে পেছনে বেঞ্চিতে বসত । মুখ চোরা ছিল বলে খেপাত কিন্তু কিছুই মনে করত না । ফেল করা দীপন বলত – কি রে , আজ তুই যদি পেছনে বসিস তাহলে আমরা কোথায় বসব ?
নবীত হাসি হাসি মুখে উত্তর দিত আর মনের মধ্যে একটা ভয় কাজ করত । এই ভয়ের জন্য বইয়ের সব পড়ে ফেলত । সময় দিত । সাজেশন করে পড়া শিখতেই পারল না । ভয় থাকত যদি দিয়ে দেয় আন্দাজে লেখার চেয়ে পড়েই লেখা ভাল । তাছাড়া নবীনও শিওর জানত এবার এই প্রশ্ন দেবেই না । তবুও ভাল করে পড়ে নিত । পরীক্ষায় হয়তো থাকল না কিন্তু ভাল করে জেনে নিতে ক্ষতি কি ? পরীক্ষার শুরুতে যে ভয়টা পায় কিছুটা লিখতে লিখতে সে ভয় কেটে যেত । অন্য অনেকের মত কেন যে বিন্দাস থাকতে পারে না কে জানে ? স্কুলের অনুষ্ঠানে মঞ্চে উঠে আবৃত্তি বক্তৃতা দিতেও খুব ভয় পেত ।
বাড়ি ফিরে স্কুলের সব কথা তাই মা বাবাকে বলে দিত । একবার বলে নি কিন্তু ঘুরিয়ে ফিরিয়ে কিছুদিন বাদে ঠিক জেনে গিয়েছিল মা । তাতে খুব কষ্ট পেয়েছিল । সেই কষ্টের চিত্র সংসারে দৈনন্দিন । স্কুল ছেড়ে সেই নবীত যখন কষ্ট গায় মাখতে শুরু করল তখন কত কিছু সহ্য করতে শিখে গেল । আর শিখতে চেষ্টা করল ভয়কে জয় করা ।
অন্ধকারে পথ হাঁটতে ভয় করেই । সাপখোপ পোকামাকড় রাস্তার উঁচুনিচু আর ভূতের ভয় । বেকার জীবনে অলিগলিতে এ সব টপকাতে গিয়ে দেখেছে এগুলো কিছুই সব না , এক পা এক পা করে এগিয়ে গেলে ভয় আর থাকেই না ।
রাতের আঁধারে প্রায়ই রে রে হৈ হৈ চিৎকার কান্না উৎকট উল্লাসে নবীতের আরো বেশি ভয়ে করে । মানুষের এই ভয় থেকে বেরিয়ে আসতে চেয়েও পারে না নবীত ।
একটা কাজ জুটিয়েছে । সেই কাজেও সহজ পথে জীবনের জন্য কাজ করার ইচ্ছাতে কত রকমের ভয় নবীতকে আরো গভীর সংকটে গুটিয়ে রেখেছে তা বলার নয় ।
স্কুলের সেই সব দিনে ভয় কাটিয়ে উত্তীর্ণ হতে পেরেছে । ভাল ফলও করেছে । কিছু এখানে প্রতি পদে কত রকম ভয় । কিছুতেই প্রাণখোলা বাঁচা বাঁচতেই পারছে না । এ ভয় ক্রমাগত
বাড়ছে ।
তবুও মানুষ হতে ভয় কাটিয়ে ওই দেখুন আপনার সামনে নবীত সোজা হেঁটে চলেছে । এবার ও মঞ্চে উঠে পুরস্কার নিয়ে সমস্ত ভয় কাটিয়ে সোচ্চার গলায় জীবনকথা বলবেই বলবে
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন