বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২৩ এপ্রিল ১৯৭০
গল্প/কবিতা: ৫৮টি

ভাই/বোন (মে ২০১৪)

মলের মধ্যে মুখোমুখি

দীপঙ্কর বেরা
comment ২  favorite ০  import_contacts ২২৪
মলের মধ্যে সানজিকে নিয়ে ঢুকেই সায়ন্ত বুঝতে পারল । তাকে সবাই অন্য রকম ভাবছে । প্রায়ই এমন ঘটে বলে মাকে বলেছিল – তোমরা চলো । সানজি আমার সঙ্গে গেলে প্রায়ই নানান অপ্রিয় কথা কানে আসে ।
-তুই কি রে ? তোর নিজের বোন , তার সঙ্গে যেতে তোর এত দ্বিধা ।
-তা নয় মা , সবাই ভাবে ও আমার গার্লফেন্ড । তাই ভেবে সে রকম বিহেভ করে ।
-কেন ? বন্ধুদের বুঝিয়ে বলতে পারিস না ?
-বন্ধু ছাড়াও আমাদের সমাজে আরো লোকজন আছে মা ।
-আমি কোন কথাই শুনতে চাই না । আজকে ওকে নিয়ে যেতে হবে আর ওকে সম্মানের সঙ্গে মল থেকে ঘুরিয়ে আনতে হবে ।
অগত্যা তাই হল । ঢুকেই সানজি বলল – দাদা , তোর চিন্তা নেই আমি তোর পাশেই আছি । লোকে কি বলল কি এসে যায় । চল ট্রেন্ডসে চল । ওখানে ভ্যারাইটি আছে ।
পাশেই আস্তে মুখের সিটি শুনেই ঘুরে দেখে একদল ছেলে সানজির প্রায় গা ঘেঁষে চলে গেল । তাতে সায়ন্তকে দাঁড়াতে দেখে সানজি আর পারল না । একটু কোনায় নিয়ে বলল – দেখ দাদা, নিজের মনোভাব বদল কর । মেয়েরা যেমন আজকাল কাজে বেরিয়েছে । ছেলেরা সেই বেরিয়ে পড়া মেয়েদের মত করে এগিয়ে চলছে । এই একটু ধাক্কা লাগল , কে সিটি দিল , কে বাঁকা চোখে দেখল এ সবকে আর কেউ পাত্তা দেয় না । তুই আমার দাদা সেটাই আমার গর্ব । আমাকে কেউ অসম্মান করছে এটা যেমন ভাবছিস , অসম্মানের অবস্থান অনেক বদলে গেছে । তাই না ?
-তুই তো অনেক বড় হয়ে গেছিস । আমিও তাই ভাবি । কিন্তু চারিদিকে কেমন যেন খোলামেলা ভাব আর নিজেকে বিলিয়ে দেওয়া আর জোর করে লুটে নেওয়ার পরিবেশ গড়ে উঠছে ।
-তুই আমার ভাল বন্ধু বলে এ সব বলতে পারছি । আর দেখ মাও কি সুন্দর বুঝে গেছে । আর বাবার কথা বলিস না । গুড পারসোনালিটি ।
-তুই দেখ আমরা এখানে কথা বলছি দেখে ওরা কিন্তু ভেবেই চলেছে অন্য ।
-কেউ ভাবছে না । আমরা সেই ভাবনায় থাকলে জীবন চলবে ।
এবার ওরা লেডিজ জামা কাপড় দেখে দুটো নিল , সায়ন্তের জন্য জামা নিল , ট্রায়াল দিয়ে প্যান্ট নিল । আর তাই অল্টারে দিয়ে অপেক্ষা করতে লাগল ।
এত ভিড়ের মাঝে দু জন বেশ । কত রঙিন জীবন । হাসির ফুলঝুরিতে মাতোয়ারা জীবন । কত কি সুখের আয়োজন । মন ভাবনার হাজারো প্রযুক্তি ।
-কি রে গুম মেরে গেলি । রাগ করলি ।
সানজির কথা শুনে সায়ন্ত হেসে ফেলল । ডিজিটাল রুমে ঢুকেই বলল – দেখ , আমার কত বন্ধু । আজকে কেউ আসে নি মনে হয় । কয়েকটা তো ঝাঁপিয়ে পড়ে তাও ঘরের আর ঐতিহ্য আমার মধ্যে আছে বলে আজও প্রেমিকা হিসেবে কাওকে মনে হয় নি । আবার অনেকেই ভাল হয়তো আমি পাল্টাতে পারি নি ।
সানজি গালে টোকা দিয়ে বলল – আমার ভাল দাদা । সে জন্য কষ্ট নাকি ! বলেই খিল খিল হেসে ফেলল । তাই দেখে সেলস-ম্যান চমকে উঠল । আর ‘উরে বাস !’ বলে চলে গেল ।
-দেখ সিজি , আস্তে । চুপ ।
-কেন । তুই আছিস আমার কি ভয় । থোড়াই কেয়ার । চল উপরে কে এফ সি তে গিয়ে কিছু খাই চল ।
এক্সেলটারে উঠেই সায়ন্ত বলেই ফেলল – সিজি , তুই এ রকম কাও কে ।
এবার মনে হয় সানজি রেগে গেল – তোকে কি মা এই জন্য আজ আমাকে সঙ্গে পাঠাল ।
জিভ বের করে সায়ন্ত লাইনে দাঁড়াল । চিকেন নিয়ে খেয়ে এ সি র বাইরে এসে সব ধুলো ঝেড়ে ফেলে সমাজ স্রোতের ধুলোর মধ্যে অনাবিল সম্পর্কের হাসিতে ছড়িয়ে পড়ল আর ছড়াতে চাইল ভাই বোনের আদর ।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন