বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ৭ নভেম্বর ১৯৬৪
গল্প/কবিতা: ২০টি

সমন্বিত স্কোর

৪.০৫

বিচারক স্কোরঃ ২.৮৫ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.২ / ৩.০

তমিস্রা

ব্যথা জানুয়ারী ২০১৫

আর কত কাল

ব্যথা জানুয়ারী ২০১৫

মা

বিজয় ডিসেম্বর ২০১৪

প্রত্যয় (অক্টোবর ২০১৪)

মোট ভোট প্রাপ্ত পয়েন্ট ৪.০৫ মাটি

মীর মুখলেস মুকুল
comment ৫  favorite ১  import_contacts ৬৪২
সিরাজ জিন্নাতের মাইক্রোবাসটা উখিয়া বাসস্ট্যান্ডের সেই পুরনো চেনা চা’য়ের দোকনের পাশে এসে যখন থামে তখন বেলা পাঁচটা। জানুয়ারির গোড়ার দিক হওয়ায় এটা ছিল হাড় কাঁপান শীতের বিকাল। তখন পৃথিবীর মাটিকে অন্ধকার ঘিরে ফেলছে। যেমন পাকিস্তানিরা সাতচল্লিশের পর ঘিরে ফেলেছিল পূর্ব-বাংলাকে। দোকান থেকে টাটকা কেমিক্যালমুক্ত পাহাড়ী কলা খেতে খেতে অনেক কিছু ভাবছিলেন তিনি। সারাদিনের ভ্রমন ক্লান্তির পর এমন নির্ভেজাল ফল তৃপ্তি এনে দেয়। তারপর গরম চায়ের সাথে চুরুটের ধোয়া; নিজেকে আরও বেশি চাঙা করে নেয়ার সুযোগ হাতছাড়া করেননি। তার চোখ যেন আক্ষরিক অর্থে দূরবিক্ষণ এবং একই সাথে অণুবিক্ষণ যন্ত্রও; পর্যবেক্ষণ চলছিল চারদিক, যদিও তার চোখে সানগ্লাস ছিল। তাকে দেখলে যে কেউ ভাববে সাদাসিদে লোক। প্রায় সত্তরের কাছাকাছি বয়স, মুখে কাঁচা-পাকা ছাঁটা চাপদাড়ি, মাঝারি উচ্চতায় হলকা গড়ন। সামান্য ভুড়ির লক্ষণ আছে। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ঢাকা ইউনিভার্সিটির রাষ্ট্রবিজ্ঞানের মাস্টার্স পরীক্ষা ফেলে মুক্তি যুদ্ধে অংশ গ্রহন করেন। একটা ইউনিট কমান্ডার ছিলেন। যুদ্ধ চলাকালে আহত হন এবং আহত মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে মিরপুরে সাড়ে তিন কাঠার একটা প্লট পান। শুরু থেকে শেষ অব্দি এই তার সম্পদ। বই-পত্রিকা পড়া তার নেশা এবং তিনি একজন ভ্রমন রশিকও বটে। প্রায়শ দু’দিন পাঁচদিন এখানে সেখানে বেড়াতে চলে যান। কোথায় যান, কেউ জানে না। আজ এসেছেন কক্সেসবাজারের উখিয়ায়। সন্ধ্যার পরপরই তাকে এখান থেকে আরও ছয়-সাত কিলো দক্ষিণ-পশ্চিমে পাহাড়ী টিলা ধরে পৌঁছতে হবে জালিয়া পালং এর সমতল ভূমির সাগর তীরে। সেখানকার ‘উখিয়া নেচারাল সল্ট এন্ড রিফাইনারী লিঃ’; একটি লবন কারখানা তার গন্তব্য। লবন রিফাইন এবং বাজারজাত; কারখানার আসল কাজ নয়। এটা মূলত নিষিদ্ধ সংগঠন উলাটো-র (টখঅঞড-ইউনাইটেড লিবারেশন আর্মি অব থার্ড ওয়ার্ল্ড) প্রশিক্ষণ শিবির। এরকম প্রশিক্ষণ শিবির বাংলাদেশে আরও ন’টি আছে। প্রায় সবগুলোয় সীমান্ত ঘেঁষে, জঙ্গল বা পাহাড়ী এলাকায়। সিলেটের জাফলং-এ আছে পাথরের ব্যবসার আড়ালে, সুনামগঞ্জে শুটকির আড়তের আড়ালে, খুলনার পাথরঘাটায় মধু ব্যবসাকে ফোকাস করে; ইত্যাদি। সিরাজ জিন্নাত উলাটো-র বাংলাদেশ প্রধান।

গভীর অন্ধকার। মধ্য রাত্রির ভূতবাজির নিরবতা। পূব ঘেষে উঁচু-নিচু পাহাড়ী বনভূমি। সেখান থেকে মাংশখেকো বন্য জীব-জানোয়ার বা ক্ষুধার্ত বড় ডানাঅলা পাখির চিৎকার শোনা যায়। পশ্চিমে বেশ দূর থেকে ভেসে আসে অশান্ত সাগরের অস্পষ্ট অথচ বিরতিহীন গর্জন। এর মাঝে একদল সৈনিক পৃথিবীর মাটিকে রক্ষার সংগ্রামে জাগ্রত। কারখানার মাঝারি মাপের একখানা কক্ষের টিমটিমে আলোতে বসে আছেন জিন্নাত তবুও চোখে সানগ্লাস। গায়ে মোটা জ্যাকেট, মাথায় হ্যাট, ঠোটে চুরুট। তার পাশের চেয়ারে কারখানার মালিক এবং উলাটের বিশ্বস্ত কর্মী মাজেদ শেখ। মাঝে টেবিলের উপর নানান যন্ত্রপাতি; ল্যাপটপ, ওএইচপি, প্রোজেকটর, ডিভিডি প্লেয়ার থেকে শুরু করে নানান দেশের ম্যাপ, কাগজ, কলম, মার্কার, চক-ডাস্টার আরও কত কী। দেয়ালে সিনেমাস্কোপ স্ক্রিন, ইজেল বোর্ড। টেবিলের ওপাশে পনের জন প্রশিক্ষণার্থী। সবাই ইউনিভার্সিটি, মেডিকেল বা ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্র; তাদের মধ্যে বার্মিজ, ভারতীয়, আফগান, ইরানী কম্বোডিয়ান এবং পাকিস্তানি ছিল।
মাজেদ শেখ সবাইকে সংগ্রামী শুভেচ্ছা জানিয়ে অনুষ্ঠান শুরু করলেন এবং রাত্রি কালীন কর্মসূচি জানালেন। আজকের আকর্ষণ মূল বক্তা সিরাজ জিন্নাত ও ডকুমেন্টারি ফিল্ম শো ‘দি আর্থ’।
পিছনের সারির এক কোনায় একটু বেশি আন্ধকারে বসেছিল সনম। সে চুয়েট-র কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়রিং এর ফাইনাল ইয়ারের ছাত্র। তার পাশে বসেছিল সিলেট শাহ জালাল প্রযুক্তির বিবিএ-র ছাত্র সুমিত।
সিরাজ জিন্নাত ননস্টপ বক্তৃতা দিলেন, একাত্তরে পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ধরে বাংলার মাটিকে উদ্ধার করেছিলাম। এখন পৃথিবীর তৃতীয় বিশ্বের দেশের মাটি অরক্ষিত। প্রথম বিশ্বের মোড়লরা গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠার নামে সাম্রারাজ্যবাদী আগ্রাসন চালিয়ে তাদের শোষণ করে যাচ্ছে। তারা মস্তিস্ক ও অস্ত্রের জোরে এসব দেশের তেল, গ্যাস, কয়লা, সোনা, হীরে, ইউরেনিয়াম লুট করে নিয়ে যাচ্ছে। প্রতিবাদ করলেই সন্ত্রাসবাদীর নাটক সাজিয়ে সামরিক অভিজান চালায়। এরই প্রতিবাদে আমরা তৃতীয় বিশ্বের নির্যাতীত নিপিড়ীত দেশ ও জাতি মিলে গঠন করেছি উলাটো। এটা কোন সন্ত্রাসী দল নয়। আমদের কাজ হল অবহেলিত এইসব জাতির উর্বর মস্তিস্কের লোকদের সচেতন করে গড়ে তুলে প্রথম বিশ্বের এই ঘৃণিত কার্যক্রমের প্রতিবাদ করে একটি সাম্যের বিশ্ব গড়ে তোলা। উলাটোর এই আদর্শ ও উদ্দেশ্য বিশ্বের সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠান ইউএনও-কে জানিয়েছিলাম। কিন্তু দূর্ভাগ্য ইউএনও সেসব মোড়লদের পকেটে চলে গেছে। তাদের স্বার্থে আঘাৎ লাগায় উলাটো-কে নিষিদ্ধ করা হয়েছে...।

চা বিরতির পর আবার কার্যক্রম শুরু হয়। সবাই অখণ্ড মনোযোগ দিয়ে উলাটোর সদস্য দেশগুলোর ম্যাপ দেখছে। ওএইচপি-র ফিক্সড ¯øাইডে আফগানিস্থান, ইরাক, পাকিস্তান, লিবিয়া, সিরিয়া এবং বহু পূর্বের ভিয়েতনামে সামরিক হামলা চালিয়ে যে ব্যাপক ক্ষতি করা হয়েছে তার কিছু দূর্লভ ছবি দেখে তারা সবাই শিউরে উঠে। ে
তিনটের দিকে লাইট অফ করে আইস ব্রেকিং হয়...। প্রজেক্টর চালিয়ে ফিল্ম শো শুরু করতেই সবাই নড়েচরে বসে এবং সনম সুমিতকে বলে, দি আর্থ শুরু হচ্ছে, দেখ দেখ। স্ক্রীনে সবাই দেখতে পায়...

‘দি আর্থ’
স্টারিং- আব্দেল আজিজ (ইরান), অং সান মি (ভিয়েতনাম), রফিক তারেক (বাংলাদেশ) ... ... ...
সাউন্ড এন্ড রেকর্ডিং- ইরান... ... ...
ডিরেক্টর-ভøাদিমির সালামিরভ (উজবেকিস্তান) ... ... ...
প্রোডিউচার- ইরান, ইরাক, লিবিয়া, মায়ানমার, ভিয়েতনাম ও উজবেকিস্তান শাখা, উলাটো।

দূর থেকে উঁচু গোল থাম ও গম্বুজঅলা বিশাল সাদা একটা বিল্ডিং দেখা যায়। বোঝা যায়, প্রথম বিশ্বের সবচাইতে ক্ষমতাধর একটি দেশের প্রধান ভবন। বড় বড় বিল্ডিং সেদেশের শহরগুলোতে। থামঅলা বিল্ডিং থেকে ফোকাস গিয়ে স্থির হয় একটা হল রুমে। সেখানে কোট-টাইপরা দুজন পুরুষ এবং স্কার্টপরা আকর্ষণীয় চেহারার এক মহিলাকে কারোর অপেক্ষায় বসে থাকতে দেখা যায়। তারা নিজেদের মধ্যে নিচুস্বরে কথা বলছিল এবং হাসাহাসি করছিল। একটুপর জুতায় কচমচ শব্দ তুলে বয়স্ক ভারিক্কি চেহারার কোট-টাইপরা একজন সেখানে প্রবেশ করেন। তাকে প্রচণ্ড প্রত্যয়ি উচ্ছ¡াসিত উচ্চকিত মনে হয় এবং দৃঢ় কণ্ঠে বলেন, ফক্স মার্ক! লায়ন ট্রেড! লিজার্ড ম্যাক্স! সবাইকে কনগ্রাচুলেশন, নতুন মন্ত্রী হিসাবে শপথ নেবার জন্যে। তোমরা কেমন আছ?
সবাই মাথা নিচু করে অভিবাদন জানায়, ইয়েস ড্যাসিং হিরো, ভাল। আমরা নিশ্চিত যে আপনিও ভাল।
হিরো বলেন, দল পরিবর্তন হলেও আমাদের পররাষ্ট্রনীতির কোন পরিবর্তন হয় না। হিরো তার পাশে বসা স্কার্ট-সুন্দরীর দিকে তাকান, ‘ফক্স মার্ক’ আই মিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী তুমি আমার ডান হাত। সুতরাং তোমার কাছ থেকে আমি তেমনটাই আশা করি।
ইয়েস হিরো। উতফুল্ল ফক্স মার্ক।
এবার হিরো ইয়া মোটা-সোটা-র দিকে তাকান, ‘লায়ন ট্রেড’! তুমি হলে হিং¯্র দানবতুল্য এবং আমার বাম হাত। এ দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রীরা এমনই হয়।
ইয়েস হিরো। লায়ন ট্রেডের গর্বে বুক ফুলে উঠে।
ড্যাসিং হিরোর দৃষ্টি স্থির হয় ক্ষীণ স্বাস্থ্যের শেষজনের উপর। লিজার্ড ম্যাক্স! বেশ একটা হুংকারের মত শোনা যায়।
মাজার বেল্ট টেনে তুলতে তুলতে দাঁড়ায় সে, বলুন হিরো।
ঈগল চোখ, শকুন নাক এবং শেয়াল স্বভাবঅয়ালাদের কেবল গোয়েন্দা প্রধাননের দায়িত্ব দেয়া হয়। তুমি আমার চোখের আলো। বুঝেছ?
ইয়েস হিরো, সরু থুতনির নিচে নড়েচড়ে উঠে, বুঝেছি।
সনম ফিসফিস করে সুমিতকে বলে, ঐ দেশের সবাই প্রেসিডেন্টকে ‘ড্যাসিং হিরো’ বলে। যেমন জার্মানিরা হিটলারকে বলতো ফুয়েরার এবং রুশরা তাদের নেতাদের বলে কমরেড।
সনমের মুচকি হাসি সুমিত অন্ধকারেও টের পায়। চুপ কর শালা। ঐ দেখ প্রেসিডেন্ট সবাইকে ফাইল-পত্র দিচ্ছে আর কিসব বলছে।
সবার দৃষ্টি ফাইলের উপর। ড্যাসিং হিরো বলেন, সব কথার শেষ কথা ছলে বলে কৌশলে এ পৃথিবীর মাটি আমাদের দখলে রাখতে হবে...।

এবার বেশ কিছুক্ষণ ক্যামেরা ঘোরাঘুরি করে সেদেশের উঁচু উঁচু বিল্ডিংঅলা শহরের উপর। টাইট জিন্স পরা নানা বয়সের নারী-পুরুষেরা যেন নির্বিকার চাকা এবং গন্তব্যের ভাবনায় অস্থির। তারপাশে দেখা গেল নীল জলের ভরা যৌবনের সাগর, তাতে সচল সৌখিন জাহাজ আর প্রচণ্ড গতিতে থাকা স্পীডবোড। সেটার তীর ঘেষে এক বিশাল মূর্তি হাতে মশাল। তারপর আবার সেই থামঅলা সাদা বিল্ডিং। সেখান থেকে ফোকাস স্থির হয় সেই অফিসকক্ষে। বোঝা গেল কিছুদিন পরের ঘটনা। ড্যাসিং হিরো তার অফিসে সোফায় বসে চোখ বন্ধ করে কী যেন ভাবছেন। তার পিএস গোলগাল টাইট জিন্সের এক যুবতি, বুকের অর্ধেকটা খোলা, সে ড্যাসিং হিরোকে একটা বিয়ারের ক্যান হাতে ধরিয়ে সে নিজেও একটাতে চুমুক দেয়। হিরো যুবতির বাম হাত থেকে একটা ফাইল নিয়ে পাশে সোফায় ফেলে তাকে কোলের উপর বসান। যুবতি দু পা দু’দিকে রেখে হিরোর উরুর উপর বসে তার দিকে এক জাদুকরী দৃষ্টি দিয়ে তাকিয়ে থাকে...।
হিরোর হাসিতে লোলুপতা উপছে পড়ে, ঠোঁট চঞ্চল হয় তার ঠোঁটের উপর, বাহু দিয়ে পিশে মারার চেষ্টা করে...।
এ সময় বাইরে লাল বাল্ব জ্বলছিল এবং তিন মন্ত্রি বার বার হাতঘড়ি দেখছিল। আজ স্পেশাল মিটিং আছে...। কিছুক্ষণ পর সবুজ আলো জ্বেলে উঠলে সবাই ভিতরে প্রবেশ করে। সুমিত একটা বিশ্রি গাল দেয়। সনম বলে, শালা নাম্বার ওয়ান লুচ্চা। সনম আর সুমিত মিটমিট করে হাসে...।
ড্যাসিং হিরোর চোখ বোজা এবং ভারিক্কি মেজাজ, চেয়ারে দুলছেন। হঠাৎ সোজা হন, তাকিয়ে গম্ভির কণ্ঠে বলেন, ফক্স মার্ক! প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বিশ্বেকে কবজায় রাখার জন্যে কী পরিকল্পনা করেছ?
ফক্স মার্ক একজন দূর্দান্ত সুন্দরী। পঞ্চাশেও বয়স বোঝা যায় না। কণ্ঠ নেকো, শেয়ালের মত। হুক্কাহুয়ার ধাচে বলে, আমাদের ‘ওয়ার এগেইনেস্ট টেরোরিজম’ এর নীতির সাথে প্রথম বিশ্বের সবাই একমত। ডোন্টওরি এ্যাবাউট সেকেন্ড ওয়ার্ল্ড, তারা নিজেদের উন্নয়ন নিয়ে মহাব্যস্ত। সমস্যা তৃতীয় বিশ্বেকে নিয়ে। কিন্তু প্রিয় ড্যাসিং হিরো ওরা জানে না আমাদের নাটক কতটা জটিল আর ভয়াবহ। দরকার হলে আরও দশটা টাওয়ার ধ্বংস করে ওদের সন্ত্রাসবাদী বানাব। তারপর এ্যাঃ এ্যাঁ...। হাতে হাত পিষে হিরোকে দেখায় আর মুচকি মুচকি হাসে।
অলরাইট! ধন্যবাদ, ফক্স মার্ক। সন্তুষ্টির হাই তুলে ড্যাসিং হিরো প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন লায়ন ট্রেডের দিকে। লায়ন ট্রেড তুমি কী কী পদক্ষেপ নিয়েছ?
লায়ন ট্রেড বীর পুরুষ। উচ্চতায় ছয়-সাত ফিটের কম না, ওজন সোয়া’শ কেজি ছাড়িয়ে যাবে। লায়নের ঘ্যাঁসঘ্যাসে স্বরে মৃদু হুংকার, ওহ্ ড্যাসিং হিরো! ইউ কান্ট ইমাজিন, আমরা কী করতে পারি! বলতে আমার নিজের গায়ের রোমই শিউরে উঠছে। এই দেখুন; শার্টের হাতা গুটিয়ে নিজের হাত হিরোকে দেখায়।
হিরো বলেন, ওকে ওকে। কী করতে পার সেটাই বল।
লায়নের গর্জন শুরু হয়, আমাদের অগনিত পারমানবিকশক্তি চালিত ডেস্ট্রয়ার, অত্যাধুনিক জঙ্গি বিমান, পারমানবিক অস্ত্র বহনে সক্ষম আইসিবিএম (ইন্টার কন্টিনেন্টাল ব্যালাস্টিক মিসাইল) ছাড়াও এটম, হাইড্রোজেন, নিউট্রোন বোমা আছে। এর উদাহরণ ছয়, নয় আগস্টের ‘লিটল বয়’ এবং ‘ফ্যাট ম্যান’। নাও আই লাইক টু হুইসপার। সে ড্যাসিং হিরোর কানের কাছে মুখ রেখে ফিসফিস করে, মধ্যপ্রাচ্যকে বাগে রাখতে আমাদের হলি চাইল্ড-কে এইসব মারণাস্ত্র বেশুমার দেওয়া আছে। ও আমাদের বিশ্বস্ত এবং অনুগত, হুকুমের দাস। এসব না হয় বাদই দিলাম, উপগ্রহ নিয়ন্ত্রিত ড্রোন দিয়ে পৃথিবী ধ্বংস করে ফেলবো তবুও আমদের একটা লোকের পশম নড়বে না। আতএব নো চিন্তা ডু ফুর্তি...। এসময় ইনসেঠে মাঝে মাঝে পাঁচ বাহুর একটা বিশাট ভবন অনেক উঁচু থেকে ঘুরে ঘুরে দেখান হচ্ছিল।
ড্যাসিং হিরো ক্লিন সেভড নাকের তলদেশ বাম হাত দিয়ে বার বার পাকাচ্ছিলেন, যেন তিনি অদূর ভবিষ্যতে গজিয়ে উঠা মোচে আগাম তা দিয়ে অভ্যেস করছেন।
ড্যাসিং হিরোর রিভলবিং চেয়ার এবার লিজার্ড ম্যাক্স এর দিকে ঘুরে যায়। এতোক্ষণ তার ডান হাত ছিল প্যান্টের ভিতর আন্ডার ওয়্যার এর নিচে। সেটা ওখান থেকে বের করে একটা কোঁকড়ানো চুল দেখতে দেখতে বলেন, তুমি কী বলবে বল।
লিজার্ড ম্যাক্স হাড্ডি খিজিরের মত দেখতে। খালি গা হলে মনে হয় বাচ্চরাও তার বুকের টুয়েলভ পেয়ার অব রিবস অনায়াসে গুনে ফেলতে পারে। তার মেয়েলি ক্যান ক্যানে গলা। মাঝে মাঝে টিক টিক আওয়াজ গলা থেকে বের হয়। সে বলে, ধন্যবাদ ড্যাসিং হিরো। সারা বিশ্বে এমন কোন দেশ, এমন কোন সংস্থা, এমন কোন পলিটিক্যালপার্টি, এমন কোন ইনফ্লুয়েন্সিয়াল, এমন কোন টেরোরিস্ট, এমন কোন বেঈমান নাই যাদের অভ্যন্তরে বা মন মগজের ভিতর আমাদের লোক নাই। আমাদের নেটওয়ার্কিং ইন্টারনেটের চেয়ে কয়েক হাজার গুন বেশি উন্নত ও কার্যকর। আমরা যেমন নির্ভুল তত্ব উপাত্ত দিতে পারদর্শি ঠিক তেমনি কথা বের করে নিতেও সিদ্ধহস্ত। কেউ যদি কথা পেটে হজম করে ফেলে, তার মল থেকে এমনকি প্র¯্রাব বা বমি থেকেও কথা খুঁজে পেতে পারি। কেউ যদি মনের অজানা কুটিরে কথা লুকিয়ে রাখে সেখান থেকেও মাইন্ড সেনসেটিভ যন্ত্রের সাহায্যে কথা প্রিন্ট করে আনতে পারি।
এসব কথা শুনে ড্যাসিং হিরোর বুক ছয় ইঞ্চি ফুলে পট পট করে তার স্যুটের তিনটি বোতাম ছিঁড়ে যায়। নেকটাই গলায় এঁটে ফাঁস লেগে প্রাণ যাই যাই অবস্থা। তিনি দু হাতে টাই এর নট খুলতে না পেরে গোঁ গোঁ করতে থাকেন। দ্রুত তার তিনজন পিএস মূল্যবান ফাইল দিয়েই বাতাস দিতে থাকে। নেকটাই ঢিলে করা হয়। এসির তাপমাত্রা আরও কমিয়ে তাকে তাৎক্ষণিক শংকা মুক্ত করা হয়। মিনিট পাঁচেকের মধ্যে তিনি ধাতস্ত হন। এদিক ওদিক তাকিয়ে সবাইকে রিপিটেডলি ধন্যবাদ দেন। তারপর তিনি সবার উদ্দেশ্যে বলেন, হিরে-মানিকেরা একটা চ্যালেঞ্জ নিয়ে যাও, আগামি একমাসের মধ্যে এই গ্রহের কোন কোন দেশ আমাদের বিপক্ষে এবং কোন বেজন্মা নেতা আমাদের বিরুদ্ধে কথা বলে তাদের একটা তালিকা তৈরি করে আমাকে জানাবে। ওকে বাই এন্ড গুড নাইট।
এক মাসের মাথায় রথি মহারথিরা আবারও মিটিংএ বসেছেন। ড্যাসিং হিরোর দু’পাশে দু’জন স্কার্ট পরা সুন্দরী তরুণী পিএস এসে দাঁড়ায়। একজন তার দিকে একটি ফাইল এগিয়ে দিয়ে, প্রিয় ড্যাসিং হিরো, এখানে সব তালিকা দেয়া আছে। তারা দু’জনই সেখান থেকে চলে যায়।
গুড, ভেরি গুড। ড্যাসিং হিরোর সন্তষ্টি। তালিকায় তিনি চোখ বুলাতে বুলাতে বলেন, দুটি পরাশক্তি আমাদের বিপক্ষে। এ্যাঁ, হ্যাঁ, যেতে দাও। ভেটো পাওয়ার ছাড়া দুই একটা কোঁকড়ানো লোম ছেঁড়ার ক্ষমতা আছে বটে। প্রতিপক্ষ না থাকলে খেলাটা একপেশে প্রাণহীন হয়। হঠাৎ তিনি চেয়ার ছেড়ে সোজা হন। ভ্রæ কুঁচকে ফক্স মার্কের দিকে তাকান, প্রায় পনেরটি দেশ আমাদের বিপক্ষে। এব্যাপারে তোমার মন্তব্য কী?
ডোন্ট ওরি! ড্যাসিং হিরো! আপনি হুকুম দিলে ওদের ছাই বানাতে পনের দিন সময় লাগবে। তারপর উড়োজাহাজ ভর্তি করে সেসব ছাই উপঢৌকন হিসাবে আমাদের বন্ধুপ্রতিম দেশে পাঠিয়ে দেবেন। দামি দামি প্লেট বাটি কাটলারিজ মাজার জন্যে। বলতে বলতে লেডি ফক্স মার্ক স্কার্ট টেনে নামাতে চেষ্টা করে এবং সোজা হয়ে বসে টপসের দুটো বোতাম লাগায়। মনে মনে বলে, শালার নজর খারাপ।
এতক্ষোণ ড্যাসিং হিরো কী শুনছিলেন কে জানে, তার চোখ ঐ বোতামের নিচে আর হাটুর উপরদিকটায় ঘোরাঘুরি করছিল। তিসি সতর্ক হয়ে চেয়ারে হ্যালান দিলেন, জাস্ট লাইক এ গুড গার্ল। ফের তিনি লায়ন ট্রেডের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন, বায়ান্নজন বেজন্মা বাঁদীর বাচ্চার একটা তালিকা আছে, যারা আমাদের সমালোচনামুখর। তাদের ঠাণ্ডা করবে কিভাবে?
একশ বিশ কেজি ওজনের মানুষ্য দানবের হুংকার ফুত করে নিভে যায়, মাইডিয়ার হিরো, আই মিন, আই মিন ওদের নিয়ে বহুত ফ্যাসাদে আছি, বান্দীর বাচ্চাদের বাগে আনতে পারছি না।
সাট আপ! হুংকার ছাড়লেন হিরো। বলতে লজ্জা করে না? মেয়েলোক আর মদ নিয়ে পড়ে থাকলে কী দুনিয়া চালানো যায়?
লুচ্চার বাপের মিনমিনে গলা। তুইও তো মাগি আর মদ নিয়ে থাকিস। তোর সবগুলো সেকরেটারিই তো খাসা খাসা। বাছাই করা। লায়ন ট্রেড মনে মনে কথাগুলো গুন গুন করে।
কী, কথা বলছো না কেন? মিঃ ফেটু ওরফে মটু। হিরোর তিরস্কার। যে মুরগি যে গু খায়, যে শুয়োর যে কচু অর্থাৎ কাউকে গান পয়েন্টে মানে ভয় দেখিয়ে, কাউকে মানি পয়েন্টে মানে ঘুস দিয়ে, কারোর উইক পয়েন্ট আই মিন নারী সুরা দিয়ে সাইজ করো। তা না হলে তৃতীয় বিশ্বের নতুন আবিষ্কার গুম তো আছেই। হ্যাল্লো মটু! গুম সম্বন্ধে ভাল করে জানবে। গুম এমনই সুবিধের অস্ত্র, তা হলÑ ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গকে নিমেষেই হাওয়ায় মিলিয়ে দেয়া যায়। কে বা কারা করলো, কোথায় মিলে গেল, কিভাবে মিলে গেল, কোন হদিস থাকে না। কেস-কাচারি নেই, লাসের মিছিল নেই, দাফন-কাফনের ঝামেলা নেই। হাঃ হাঃ হাঃ। এসব যে আমাদের ইন্টেলিজেন্সকেও হার মানিয়েছে। নাও মিটিং ইজ এডজন। গেট লস্ট এভরিবডি। প্রায় ধমকে উঠলেন তিনি। ও হ্যা, ছ’ মাস সময় দিলাম, যে পনেরটি দেশ বিগড়ে আছে ওদের খাদ্য সাহায্য বন্ধ করে দাও, ঋণ দিও না, মধ্যপ্রাচ্যের তেল সরবরাহকারিদের তেলের দাম বাড়িয়ে দিতে বল। মাথা ঠাণ্ডা করে কাজ কর। আর বায়ান্ন বাসটার্ড এর কড়া নজর রাখ। গো এহেড। বেস্ট অব দি লাক...।

এরপর একটি দ্বিপের ছবি ভেসে উঠে- দ্বিপটির চারপাশে নীল সমুদ্র। বাড়ি-ঘর সব বিধস্ত। একটা লোকের চি‎হ্ন নাই। সনমের মনে নানা পরিবর্তন আসছে। সে ভাবছে প্রথম বিশ্বের এসব দেশ যত শক্তিশালী, তাদের বিরুদ্ধে জয়লাভ করতে যাওয়ার চেষ্টা করা আমাদের বৃথা...। সে ভাবে, কোন সুপার পাওয়ারের সাহায্য ছাড়া সফলকাম হওয়া সম্ভব নয়। ইস একটা সুপার পাওয়ার যদি থাকতো...। সে এসব ভাবতে ভাবতে ক্লান্তির শীতল পরশে সাগরের নীল দেখতে দেখতে ঘুমিয়ে যায়। কেউ বোধ তাকে খেয়ালই করে নি। সবাই যেন কোন এক দুঃস্বপ্নের হতাশায় ডুবে গেছে...।
ছয় মাস পর ফলোআপ মিটিং বসেছে। লায়ন ট্রেড এর মুখ কাল, ভার।
ড্যাসিং হিরো রুক্ষ কণ্ঠে বললেন, লায়ন খবর বল।
লায়ন মাথা নিচু করে বলে, বায়ান্ন হারমখোড় লাপাত্তা।
হোয়াট! এই ইন্দুরের বাচ্চা তোরে লায়ন নাম রাখছে কে? পরক্ষণেই ঘাড় ঘুরিয়ে, ওই লিজার্ড ম্যাক্স টিকটিকির গুষ্টি, খালি ল্যাজ নাড়োস, কোথায় গেল হারামখোড়গুলো?
লিজার্ড ম্যাক্স কথা বলতে যেয়ে মুখ আটকে গেল। তার গলা নড়ে-চরে শব্দ বেরুলো টিক টিক টিক। তারপর মেয়েলি কণ্ঠে বললো, চাঁদের দেশে পালিয়েছে।
চাঁদ! ওটা তো আমাদের দখলে। ষাটের দশকের গোড়াতে ওটা জয় করেছি। একমাত্র আমাদের দেশের স্পেস সাটল সেখানে যেতে পারে। তয় কী ওই জানোয়ারদের পাখা গজিয়েছিল? ঠিক করে বল, ওদের ভিসা দিল কে, টিকিট পেল কোথায়? স্পেস সাটলে উঠলো কিভাবে?
ড্যাসিং হিরো, অভয় দিলে বলতে পারি।
তো এতোক্ষণ চুপ করে আছ কেন? বল বল বল, তারাতারি কর। হিরোর অধৈর্য হবার দশা হয়।
ঠিকই বলেছেন শ্রদ্ধেয় হিরো। আমাদের দেশের মহাকাশ যানেই গিয়েছে। কিছু অসাধু কর্মকর্তা ঘুস খেয়ে একাজ করেছে।
কীঃ, কোন সেসব কর্মকর্তা? তাদের ফায়ারিং স্কোয়ার্ডে দাও।
ফক্স মার্ক লাফিয়ে উঠলো। সর্বনাস! শান্ত হোন প্রিয় হিরো। আমাদের জাতিকে কলংকিত করা যাবে না। এদের দেহে ব্লু-ব্লাড। হয়তো ভুলেভালে ব্লাডে একটু স্পট পড়েছে মানে লালের ধারাটা লেগেছে। সমান্য দুষিত হয়েছে। ডায়ালাইসিস করলেই শুধরে যাবে। আপাততঃ ছুটিতে পাঠান হোক। তারপর সাময়িক বরখাস্ত। পরে না হয় দেখা যাবে।
তা না হয় হল। হিরো গর্জে উঠেন, এক্ষুণি স্পেস সাটল প্রস্তুত কর। সঙ্গে এক স্কোয়াড্রোন জঙ্গি বিমান বেধে দাও। মিসাইল, রকেট লঞ্চার এবং এক ডিভিশন স্পেসাল ফোর্স নাও। চাঁদের আনাচে-কানাচে, পাহড়, মালভূমি, নি¤œভূমি তন্ন তন্ন করে খুঁজে শয়তানদের জ্যান্ত বা মৃত ধরে আন। যাও, গো...। তার চিৎকার হল্রুমে প্রতিধ্বণি হতে লাগলো। শুনে রাখ, এ অপারেশনের নাম ‘অপারেশন ক্লিন বাসটার্ড’।
এক মাস পর খবর আসে, অপারেশন ক্লিন বাসটার্ড ব্যর্থ হয়ে ফিরে এসেছে। বায়ান্নজনই চাঁদের দেশ থেকে পালিয়েছে।
ড্যাসিং হিরো জরুরি মিটিং-এ বসেছেন। তিনি লিজার্ড ম্যাক্সকে প্রশ্ন করেন, শয়তানগুলো কিভাবে পালিয়ে মঙ্গলগ্রহে গেল? ওটাও তো আমাদের নিয়ন্ত্রনে। দীর্ঘদিন থেকে তো আমরাই নানা পরীক্ষা নিরীক্ষা চালাচ্ছি। সেখানে যাওয়া কোন প্রাণীর পক্ষে সম্ভব নয়। আর গিয়েছেই যখন তখন তোমরা বসে কী মাতারিদের গু সাফ করছো? পাত্তা লগাচ্ছো না কেন?
লিজার্ড উঠে দাঁড়াল। তার মুখ শুকনো। জিভ দিয়ে ঠোঁট ভিজিয়ে, ড্যাসিং হিরো! টিক টিক টিক, অনেকটা সেরকমই।
কিঃ, আমার সাথে ইয়ার্কি মারো?
না মানে গোস্তাকি মাপ হয় জাহাপানা! ইবলিশগুলো চাঁদ থেকে মঙ্গলে গিয়েছে এক ভিন গ্রহের চক্রের মাধ্যমে। আমাদের ট্রুপার যখন চাঁদে পৌঁছান পৌঁছান ভাব ঠিক তখন একটি দ্রুতযান চাঁদ থেকে মঙ্গলগ্রহের দিক উড়ে যাচ্ছিল। তাদের আমরা ধাওয়া করেছিলাম কিন্তু তাদের গতি ছিল আমাদেও রকেটের চেয়ে কয়েকগুন বেশি। ফলে তাদের নাগাল পাওয়া যায়নি। তারা চাঁদে একটি চিঠি ফেলে গিয়েছে। চিঠিটা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে যা জানা গেছে, পৃথিবীর কোন কম্পানি এধরনের কাগজ বানাতে পারবে না। এ কাগজ ছেঁড়া যায় না, পোড়ে না, পানিতে নষ্ট হয় না। এমনকি একুয়া রেজিয়াতেও ডিজল্ভ হয় না। কাগজের রাসায়নিক সংকেত এ্যানালাইসিস করতে যেয়ে নতুন কিছু অজানা মৌলের সন্ধান মিলেছে। এর উপর যে লেখা তা পৃথিবীর কোন কার্বন কম্পাউন্ড দিয়ে লেখা নয়। কোন ক্যামিক্যাল দিয়ে এ লেখা ভ্যানিস করা যায় না। ছাপার যন্ত্রও মনে হয় অত্যাধুনিক। ইংরাজিতে লেখা এ চিঠি নির্ভুল বলিষ্ঠ বর্ণনা। ওরা নিশ্চয় কোন ভিনগ্রহের। যারা আমাদের চেয়ে হাজারগুন উন্নত। এবং চিঠির ম্যাসেজও ভয়ানক।
স্টপ ইট ননসেন্স! ভয়ানক! না? ভয়ানক! চিৎকার দিয়ে মাথার চুল ছেঁড়ার মত টানতে টানতে ড্যাসিং হিরো উঠে দাঁড়িয়ে ঘুরেই টেবিলের উপর ধারাম করে মুষ্টাঘাত করেন। দুনিয়ার সবচেয়ে দবরদস্ত পরাক্রমশালীর গোল টেবিল ভূমিকম্পেরমত কেঁপে উঠে। সেই সাথে কম্পিত হয় বিশ্বজাহানের নেতৃবৃন্দ। তারা পরস্পরের দিকে মুখ চাওয়া-চাওয়ি করে। তিনি রাজসিংহাসন ঝাঁকুনি দিতে দিতে বলেন, সেটা কী, বলছো না কেন? বল।
লিজার্ড ম্যাক্স ওরফে শুটকু ওরফে টিকটিকি বাহাদুরের হাতে চিঠি কাঁপছে। কম্পিত কন্ঠে কথার বদলে টিক টিক টিক বা কখনও পিক পিক পিক আওয়াজ হতে থাকে।
বিশ্বনেতার চক্ষু রক্তের মত লাল, বড় বড়।
সেটার দিকে চোখ পড়তেই টিকটিকির তিরিক করে খানিক হিসি বেরিয়ে যায়। দ্রুত পকেট থেকে টিসুু বের করে সেটা কোন মতে সামাল দিয়ে পড়তে থাকেÑ
পারুখা বিশ্ব নেতা,
তোমাদের এই বসুন্ধরাটা খুব সুন্দর। আমাদেরটার চেয়েও। তোমাদের প্রকৃতিতে জীব ও জড় আছে। জীবের মধ্যে প্রাণী ও উদ্ভিদ আছে। নদী পাহাড় সাগর আকাশ মেঘমালা সব জড়। সব কিছু মিলে নারীরমত। সবচেয়ে ভাল হয় যদি বল এ ‘মাটি’ মায়ের মত। একটু চেষ্টা করলে এটা আরও সুন্দর করে সাজান যায়। অথচ তোমরা দখলবাজীতে মেতে উঠেছ। একে ধ্বংস করছো, ধর্ষণ করছো। খুব সাবধান! সেদিন বেশি দূরে নয়, যেদিন তোমাদেও মড়লগিরি খতম হয়ে যাবে...।
ইতি,
ভীনগ্রহী।
লাইট জ্বলে উঠার সাথে সাথে মৃদু গুঞ্জন উঠে। সনমের স্বপ্ন ভেঙ্গে যায়, চোখ রগড়াতে থাকে। সিরাজ জিন্নাত তার কাছে এসে দাঁড়ান। তিনি সনমের পিঠে হাত রেখে বলেন, হোয়াট সনম! এনিথিং রং?
সনসের চোখ ঝাপসা। তার ঘোর তখনও কাটেনি। সে ঢোক গিলে বলে, স্যার, সর্বনাস- ওরা খুব ভয়ানক। ওরা চাঁদ এমনকি মঙ্গল গ্রহও দখল করে ফেলেবে। কিন্তু ভিনগ্রহের লোকেরা মানে কোন সুপারপাওয়ার আমাদের সাথে আছে। ওরা আমাদের রক্ষা করবে...।
সিরাজ জিন্নাত হঠাৎ বিকট শব্দে হাঃ হাঃ হাঃ করে হেসে উঠেন, স্বপ্ন আর বাস্তবতা কী এক?
সনম কিছু একটা হাতছাড়া হয়ে যাওয়ার ভয়ে শিওরে উঠে..।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন