বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১৬ জুন ১৯৮০
গল্প/কবিতা: ৪৮টি

প্রাপ্ত পয়েন্ট

৩৫

আমার অস্থিরতায় তুমি

অস্থিরতা জানুয়ারী ২০১৬

বাংলার শীত

শীত / ঠাণ্ডা ডিসেম্বর ২০১৫

অংক ও অংকন

শিক্ষা / শিক্ষক নভেম্বর ২০১৫

গ্রাম-বাংলা (নভেম্বর ২০১১)

মোট ভোট ৩৫ হাতছানি

রোদের ছায়া
comment ৪৪  favorite ১  import_contacts ৭০৬
বিশ বছর অনেকটা সময় /.বিশ বছরে কত কিছু বদলে যায়! কত কিছু বদলে গেছে জীবনে . সেই চেনা মানুষ গুলো , চেনা পথ ঘাট . অথচ আমার মনের ভিতর আজ অবিকল আগের মতই রয়ে গেছে আমার প্রিয় গ্রামের সেই ধুলি উড়া মেঠো পথ.সেই লাল মাটির রাস্তা যার সাথে গ্রামের প্রতিটি মানুষের যোগসূত্র/ আজ থেকে ২০ বছর আগে এই রাস্তা ধরে চলত বাসন্তিপুর গ্রামের মানুষগুলো.গ্রামের এমন কেও নেই যে কোনদিন এই রাস্তায় আসে নাই.হাট বারে এই রাস্তায় কত মানুষ না হেটে গেছে হাটে. গ্রামের একমাত্র পাঠশালায় যেতে হত এই মেঠোপথ দিয়েই /আরো মনে পরে ঘন গাছপালায় ছাওয়া আমাদের বাড়ি থেকে এই রাস্তা বেশ ভালই দেখা যেত/ আমাদের দিন শুরু হত এই রাস্তার দিকে তাকিয়ে কত .ক্লান্ত দুপুরে বা সন্ধ্যা বেলা আমরা এই রাস্তার দিকে তাকিয়ে কাটিয়ে দিয়েছি তার হিসাব নেই /বাড়িতে কোনো মেহমান আসার কথা থাকলে আমরা ভাইবোন রা উত্সুক নয়নে তাকিয়ে থাকতাম /তারপর যখন মেহমান দের নিয়ে আসা গরুর গাড়ি দেখা যেত আমরা দোল বেধে ছুটে যেতাম রাস্তায় / .রাস্তার দুপাশে ধান ক্ষেত আর শেষ মাথায় bishal দুটো আম আর বরই গাছ,ছিল. কত আম যে হত গাছটায় আর বরই গাছের মিস্টি বরই খেতে ভালবাসত না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যেত না গ্রামে./আজ কত দিন সেই গাছের আম আর বরই খাওয়া হয় না. ছুটে যাওয়া হয় না সেই লাল মাটির পথ ধরে পাঠশালায়!!এখন শিলাবৃষ্টি তে আর শীল কুড়াতে যাওয়া হয় সেই রাস্তায় উপর /কিভবে কেটে যায় জীবন / সব ভুলে শুধু এগিয়ে চলা , কিন্তু ভুলা কি যায় সেই শৈশব ./ সেই গ্রাম বাংলার নিষ্পাপ শৈশব /আজ আমায় হাতছানি দেয় আমার পর গ্রাম, সেই মেঠো পথ , সেই ধানক্ষেত , আমগাছ . আজ হাতছানি দিয়ে বলে তোমরা এস আবার আমার বুকে . সেই লাল ধুলা উড়া মেঠো পথ হাতছানি দিয়ে বলে আমি অপেক্ষায় আছি তোমাদের যত একসময় আমার বুকের উপর হেটে গেছ নিজ নিজ কাজে./ আমি আজ খুব বেশী হাতছানি শুনি সেই ফেলে আসা শ্যামল বাংলার/ যেই সবুজ গ্রামে কেটেছে জীবনের শুরুটা/ এই হাতছানি উপেক্ষা করার নয় , আমাকে আবার ফিরে যেতে হবে সেই লাল মাটির রাস্তা ধরে ছায়াময় গৃহে. আমার মত আর কেও কি সেই হাতছানি পেয়েছে?? গ্রাম বাংলার নির্মল হাতছানি ?? বাংলার পল্লিকবির মত মাঝে মাঝেই আমি শুনি সেই হাতছানি '' তুমি যাবে ভাই যাবে মোর সাথে আমাদের ......
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
  • জুয়েল দেব
    জুয়েল দেব আপনি অনেক সৌভাগ্যবান/সৌভাগ্যবতী, গরুর গাড়ি দেখেছেন। আমার শৈশব গ্রামে কাটলেও গরুর গাড়ি দেখার সৌভাগ্য হয় নি। চমৎকার লিখেছেন। তবে, দাঁড়ি, কমা গুলোতে মনে হয় একটু সমস্যা হয়েছে।
    প্রত্যুত্তর . ২৪ নভেম্বর, ২০১১
  • রোদের ছায়া
    রোদের ছায়া জুয়েল দেব আমার গ্রামে থাকার এবং গরুর গাড়ি দেখার সৌভাগ্য হয় নাই/ আর বাংলা টাইপ করতে না পারার জন্য দাড়ি, কমার ভুল গুলো হয়েছে/ তোমাকে আর তানি হক কে ধন্যবাদ আমার লেখা পড়ার জন্য/
    প্রত্যুত্তর . ২৪ নভেম্বর, ২০১১
  • rakib uddin ahmed
    rakib uddin ahmed বহুদূর যেতে হবে,এখনও পথের অনেক রয়েছে বাকি....পথচলায় আস্হা রেখো,দিনের দিনেশ রাঙাবে যখন,তখন রোদের ছায়ায় থেকো;প্রিয়তার মাঝে প্রিয় লিখাগুলো সব সাবস্ক্রাইব হয়ে থেকো।
    প্রত্যুত্তর . ১৬ ডিসেম্বর, ২০১১