বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১৭ এপ্রিল ১৯৮৬
গল্প/কবিতা: ৩৮টি

প্রাপ্ত পয়েন্ট

৪৩

বাংলার রূপ

বাংলার রূপ এপ্রিল ২০১৪

কৈশোর এর রঙ

কৈশোর মার্চ ২০১৪

ক্ষোভের শহর

ক্ষোভ জানুয়ারী ২০১৪

গ্রাম-বাংলা (নভেম্বর ২০১১)

মোট ভোট ৪৩ একজন মর্জিনা ও আসমার কাহিনী

নিলাঞ্জনা নীল
comment ৫৪  favorite ১  import_contacts ৫২১
গ্রামের নাম রসুলপুর ৷ এই গ্রামের খান বাড়ির মেয়ে মর্জিনা ও রহমান বাড়ির মেয়ে আসমা ৷
দু'জনের মাঝে খুব বন্ধুত্ব, কেউ কাউকে ছাড়া থাকতে পারেনা.....যেন হরিহর আত্মা ৷
দু'বান্ধবী একসাথে খেলে, একসাথে ছোটাছুটি করে আবার স্কুলেও একসাথেই যায় ৷ পড়ালেখায় তারা একে অপরকে সাহায্য করে ৷
মর্জিনার আর্থিক অবস্থা আসমার চেয়ে কিঞ্চিত ভালো৷ তবে এই পার্থক্য তাদের বন্ধুত্বের মাঝে কখনো দেয়াল হয়ে ৺দাড়ায়নি৷
এভাবেই তাদের দিন কাটছিল ৷ একদিন স্কুল থেকে নোটিশ দেয়া হলো আর এক সপ্তাহ পরে তাদের প্রথম সাময়িকী পরীক্ষা শুরু হবে ৷পরীক্ষার জন্যে ফি নির্ধারিত হয়েছে চারশ টাকা ৷
এতটাকা দেয়া আসমার পক্ষে দেয়া অসম্ভব বিধায় আসমার পরীক্ষা শেয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়ল ৷ মর্জিনা আসমার এই অবস্থা দেখে খুব কষ্ট পেল আর মনে মনে ঠিক করলো যে ভাবেই হোক ও আসমার পরীক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা করবে ৷
মর্জিনা নিজের পরীক্ষার জন্যে টাকা নিয়ে এসে আসমার নামে জমা করে দিল ৷ কিন্তু কেউ কিছু জানতে পারল না ৷
কিন্তু পরীক্ষার দিন ব্যপারটি জানাজানি হুয়ার পর আসমা খুব দুঃখ পেল৷ মর্জিনার জোরাজুরি তে আসমা অবশেষে রাজি হলো এবং পরীক্ষা দিল৷ ফলাফলে দেখা গেল আসমা কৃতিত্বের সাথে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে৷
মর্জিনা আসমার এ ফলাফলে খুব খুশি হলো এবং আবেগে আনন্দে জড়িয়ে ধরে ৺কাদতে লাগলো৷
গ্রামের সবাই দু'জনের এ নিবিড় বন্ধুত্বকে ধন্য ধন্য করতে লাগলো৷

দৃষ্টি আকর্ষণ - আমাদের শহুরে যান্ত্রিক জীবনের যাতাকলে আমরা যেখানে বন্ধুত্বের ৺বাধনকে ভুলতে বসেছি সেখানে গ্রামের শান্ত সংহত পরিবেশে দু'জনের বন্ধুত্ব আমাদের সম্পর্কের ৺বাধনের মূল্য কে আরো একবার যেন মনে করিয়ে দেয় ৷৷
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন