বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
গল্প/কবিতা: ৮৮টি

সমন্বিত স্কোর

৩.৩৭

বিচারক স্কোরঃ ১.৭ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৬৭ / ৩.০

অনুভবে অনুরণন

প্রেম ফেব্রুয়ারী ২০১৭

অদৃশ্য অবান্তর

কি যেন একটা জানুয়ারী ২০১৭

ভেঙে যায় খেলাঘর

আমার স্বপ্ন ডিসেম্বর ২০১৬

কবিতা - অপূর্ণতা (ডিসেম্বর ২০১৬)

মোট ভোট ২৫ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৩.৩৭ একজন মুক্তিযোদ্ধার হাহাকার

সেলিনা ইসলাম
comment ৮  favorite ০  import_contacts ১৬০
হেইদিন যহন অত্যাচার সইতে সইতে
পিঠটা গেছিল দেয়ালে ঠেইকা?
মায়ের বুকে আসন নিছিল হগুণের পাল
মায়ের নিঃশ্বাস নিতে হইছিল কিযে কষ্ট
ফলন জমি ফালাইয়া গর্ভবতী বৌরে রাইখ্যা
মা’রে শ্বাস দিতে হেইদিন আমিও করছিলাম যুদ্ধ।

শীতে কাঁপন ধরছে,জুতা পায়ে নাই দগদ্গা ঘা হইছে
মাইলের পর মাইল চিটা পেট লইয়া এক একটা
পিশাচরে ধইরা ধইরা মাডির পেডে ঢুকাইয়া দিছি।
শিকল দিয়া বাইন্দা আমার মায়ের-
ফলত বাগানে চোখ ফালাইল!
জিব্বা দিয়া লালা ফালাইছে বইলা
আঙ্গুল দিয়া চোখ উপড়াইয়া ফেলছি
জিব্বা টাইনা ছিঁইড়া,মায়ের শিকল খুইলা মুক্তি আইনা দিছি!

কিন্তুক আইজ...
মুক্তিযুদ্ধ তোমাগ কাছে এট্টা ইতিহাস
কিন্তুক এই মোর কাছে,মোর কাছে জ্বলন্ত আগুন !
জ্বলজ্বলা সইলতার নাহান এহনো পুইড়া মারে
দগদগা ঘা মোর বুহের মধ্যিখানে ।
হেইদিন যখন হুয়ারের পাল পিঁপড়ার নাহান,
সারিসারি দল বাইন্দা মোর ঘরে হানছিল-
সামনে তহন পথ দেহাইয়া লইয়া আইল
রহমত আলীর হগুনের চউখ !

আমার দশ বছরের মাইয়াডারে নিয়া
আদিম খেলায় উডছিলো খেকুরের রব
সাদা টুপিহান খুইল্লা পকেটে রাখছিলো
লোভিষ্ট ঐ পিশাইচ্চার প্রাণ ।
দাউদাউ কইরা জইল্লা যায় ঘর
পাঁচ বছরের পোলার হয় জিন্দা কবর
যে মাটিরে আজ দেহো তুমি হবুজ
আমি দেহি মোর জানের রক্ত দখল!

এহনও চিক্কর পারে মাইয়া "বাজান গো...
মোরে মুক্তি আইন্না দাও গো বাজান”!"
আসমানে অহনো হকুনের পাল পাখনা ঝাঁপটায়
মাডিতে দেখি টকটকা রক্তের নিশান... ।
আমার মাইরে নিয়া যে তামসা করে
তারে আমি ধ্বংস করি! কিন্তু তোমরা!?
ক্যামনে বুঝাই,এইডা আমগো জন্মতরী
এইডা কেবলই তোমার আমার
শেষ আশ্রয় বসতজমি।

আমার দুক্কু কেডায় বুঝব? তুমি বুঝবা? এই তুমি...?
নাহ...আইজ গো পাঁচচল্লিশ বছরেও খাঁ খাঁ মন
এট্টু ফোঁটা প্রেম জাগাইতে পারে নায়-
জননীরে অবহেলার এত খামতি ক্যান কইতে পারো?!

তোমরা সবাই ঝিম থাকো তাই জননীর কোলে শত্রু জম্মে।
কিন্তুক তুমি কী জানো?
হেইদিন হাতের মধ্যিখানে ঠান্ডা বোমাডা লইয়া
আগুনের মধ্যে ঝাঁপাইয়া পড়ছিলাম,
দানবের হাসি চিরতরে মিডাইয়া দিছিলাম!
চাইয়া দেহ তোমরা,এই...এ...ই হানে মনে হয়
আইজও হাতের মধ্যি ঠাণ্ডা বোমাডা ধইরা আছি
মোর কানে এহোনো বাজে ঠা ঠা গুলির হব্দ
তোমরা তোমাগো ইতিহাস নিয়া গর্ব হর
চিক্কর থামাও না,গুলির হব্দ থামাও না,হুদাই ফাল পাড়ো।

আমি অশিক্ষিত্ হইয়া,দুইডা পা দিয়া দর্প দিছি
শিক্ষিত্ হইয়া পারো না এগুলান থামাইতে?
কেন্ পারো না! মাথার গামছাডারে বানছি হক্ত হইরা ,
সময় অহন... সময় অহন ঢইলা পড়ে আন্ধারের বুকে!
আহো -কে আইবা আলো জ্বালতে!কে আইবা আও...
শিয়ালের পাল অহনো রক্তের হলী খেলে
ঘুম আহেনা কাডেনা রাইত বিরেত
আও...তোমরা বোমাডারে নিয়া ক্ষ্যান্ত কর
ক্ষ্যান্ত কর মোর অনাকাঙ্ক্ষিত,অপূর্ণ কাজ।







আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন