বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২১ অক্টোবর ১৯৭৭
গল্প/কবিতা: ১৭টি

সমন্বিত স্কোর

৪.৪৫

বিচারক স্কোরঃ ২.২৬ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.১৯ / ৩.০

বড় পরিবার

পরিবার এপ্রিল ২০১৩

অশুদ্ধ

ঈর্ষা জানুয়ারী ২০১৩

নতুন কমরেড

নতুন এপ্রিল ২০১২

২১শে ফেব্রুয়ারী (ফেব্রুয়ারী ২০১২)

মোট ভোট ৯৫ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৪.৪৫ বোবা গোঙানি / [ চক্রবৃদ্ধি অস্থিরতা ]

নিরব নিশাচর
comment ৫৬  favorite ৪  import_contacts ৮২৯
এই কণ্ঠে তোমাকে তুলে আনতে পারলাম না আজোবধি,
পারলাম না তোমাকে বিভিন্ন বিন্যাসে প্রিয়তমার কানে তুলে দিতে
অথবা মায়ের কোলে মাথা রেখে তোমার আশ্রয়ে দুটো গল্প শোনাতে কোনোদিন ।
বুকের এক পাশে আজো বাসা বেধে আছে সেই লজেন্স চুরির গল্পটা,
বসে বসে ভাবি তোমাকে স্বার্থপর, অথবা পক্ষদুষ্ট
কষ্ট নিও না তুমি ।

মাঝে মাঝে তলপেটটা চেপে পূর্ণদ্যমে তোমাকে ডাকি
ভাবি, এই বুঝি তুমি বেরিয়ে এলে !
এই বুঝি তুমি অভিমান ফেলে কণ্ঠে উঠে এলে এখুনি, স্বর অথবা ঈশ্বর হয়ে!
বার বার ভাঙ্গে ভুল, ভাঙ্গে স্বপ্ন দিবালোকে
শুধু বোবা গোঙানি বেজে উঠে ওই পুরনো রেকর্ডারে,
সাথে আড়ষ্ট কণ্ঠ পাপের শাস্তি বয়ে চলে অনন্ত...

ইদানীং ক্যালেন্ডারটা ভালোই বুঝি, ভালোই বুঝি দিন বদল
মেপে মেপে চৈতন্যোদয় দেখি অবাক বাঙালির!
দেখি একুশ এলেই ফুলেল আবেগের বাৎসরিক পশরা
আর নিথর মিনারে কঙ্কনধারীদের সুমধুর কলতান, সাথে বিচ্ছিন্ন আবেগ।
সবই চলে চব্বিশ ঘণ্টার তরে, মেপে মেপে পেন্ডুলাম..
যেন এক আনন্দ চক্র, ঘড়ির কাঁটা মেপে!

এই পশরায় বড় বেমানান থাকি প্রতিবার, উচ্ছিষ্ট বা অবশিষ্ট...
নেই কণ্ঠে শ্লোগান, নেই পরিপাটি সাজ অথবা গাদা ফুল বিস্তর!
আবেগের বাহ্যিক প্রকাশ হিসেবে শুধু হাত দুটো ছুরি এলোপাথাড়ি
আর অনুভব করি একের পর এক 'কিক অ্যাজ' অ্যান্ড 'কিক অ্যাজ'!!
ফুল হাতে ভদ্রলোকেরা গালি দিয়ে বলে, 'ব্যাটা বধিরের বাচ্চা, জলদি সর'
মনে মনে বেশ শান্তিই লাগে! ওটা যে গালি নয় আমার জন্য, জানে না বেকুবের দল।
ভাবি বসে একা অন্তরীণে-
এই ভাষা দিবসে তবে এক ভাষাহীনের এত অস্থিরতা কিবা প্রয়োজন?

[ ধীরে ধীরে রাত শেষে ভোর আসে,
শেষ হয় 'গানে গানে ভরা আরেকটি একুশ', জীবনের পাতা থেকে।
বছর ভিত্তিক ক্যালেন্ডারের তলে চাপা পরে চেতনা
আর ধুলোয় ঢেকে যেতে শুরু করে মিনারের প্রাঙ্গণ,
নতুন কোনো 'তারিখ' শাণিত হতে থাকে ক্যালেন্ডার মেপে মেপে। আ-বা-রো!! ]



** বি: দ্র: শেষের প্যারা বাদ দিলে কবিতার নাম "বোবা গোঙানী", শেষের প্যারা সহ কবিতাটির নাম "চক্রবৃদ্ধি অস্থিরতা".. যতটুকু পড়তে বন্ধুদের ভালো লাগে.. ধন্যবাদ সবাইকে
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
  • মোঃ শামছুল আরেফিন
    মোঃ শামছুল আরেফিন আমি ভাইয়া সবসময় কবিতার মাঝে গল্প খুঁজি। গল্প লিখি বলেই হয়তো এ আমার ভাল অথবা মন্দ যেকোন একটা স্বভাবে পরিণত হয়েছে। আপনার কবিতার মাঝে আমি অসাধারণ আবেগি একটা গল্প পেলাম। একজন বোবা যে কথা বলতে পারেনা তার অনুভূতি, তার আকুতি, তার গল্প না বলতে পারার বেদনা, নৈঃশব্...  আরও দেখুন
    প্রত্যুত্তর . ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১২
    • নিরব নিশাচর আমার মনে হলো যেন, তুমি এই কবিতাটির সবচেয়ে মনোযোগী পাঠক ছিলে.. এর চেয়ে মনোযোগ দিয়ে হয়ত আমি নিজেও পরিনি কবিতাটি.. আমার প্রচেষ্টার প্রত্যেকটি দিক তুমি তুলে ধরেছ সুন্দর করে.. এমন দুই চারজন পাঠক পেলে কবিতা লিখা সার্থক হয়ে যায়...
      প্রত্যুত্তর . ২৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১২
  • সূর্য
    সূর্য পুরো কবিতাটাই ভাল লাগার, তবে একটা শব্দে "তলপেটটা" এর বদলে অন্য কোন উপমা ব্যবহার (হতে পারে "বুক চাপড়ে") যুক্তিযুক্ত হতো। ঐ দুটো লাইনে অন্যরকম একটা ভাবনা মনে দোলা দেয়।..............☼
    প্রত্যুত্তর . ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১২
    • নিরব নিশাচর ধন্যবাদ দাদা.. তবে সেই মুহুর্তে সময় হাতে ছিল না বলে বিষয়টি নিয়ে বেশি ভাবতে পারিনি.. আপনার পয়েন্ট টি আমার ও নজরে এসেছিল.. শেষ মুহুর্তে আপনাকে পেয়ে ভালো লাগলো দাদা..
      প্রত্যুত্তর . ২৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১২
  • নিরব নিশাচর
    নিরব নিশাচর এই অধমের কবিতায় চোখ বুলানোর কারণে সবাইকে গণ-ধন্যবাদ..
    প্রত্যুত্তর . ২৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১২