বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১০ মে ১৯৯৪
গল্প/কবিতা: ৫টি

সমন্বিত স্কোর

৪.৪

বিচারক স্কোরঃ ২ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.৪ / ৩.০

চেতনায় প্রেম

কি যেন একটা জানুয়ারী ২০১৭

আমার সকাল

আমার আমি অক্টোবর ২০১৬

রাতের দীর্ঘতা

এ কেমন প্রেম? আগস্ট ২০১৬

গল্প - কি যেন একটা (জানুয়ারী ২০১৭)

মোট ভোট প্রাপ্ত পয়েন্ট ৪.৪ উজ্জ্বলনিশানা

আওসাফ অগ্নী
comment ৮  favorite ০  import_contacts ৪৮৮
সে দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশদিয়ে কামাল ও তার বন্ধুরা হেঁটেযাচ্ছিল। সে দিনছিল ছুটিরদিন। এদিন যদি নিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে হাঁটা যায় মনে পড়ে সেই ব্যস্ত সময়গুলির কথা।মনে পড়ে তখন নিজেদের যান্ত্রিকতার কথা।
কামাল ছেলে হিসেবে চরম ভ্রমণপিয়াসী। সে বরাবরই ঘুরতে পছন্দ করে।তার চোখ পড়ল সহসা বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের দিকে।ওখানে কেউ একজন দাড়িয়ে আছে।সেহাতে একটা কাষ্ঠখণ্ড নিয়ে কার সাথে যেন কথা বলছে।সে যে হাসিটা দিচ্ছে মনে হচ্ছে সেটা যেন অস্বাভাবিক।সে এক সপ্তাহ পর তার বোনের বাড়ি যাবার সময় ঐ লোকটিকে আবার দেখল।তার মনে হল সে ঐ লোকটিকে সে যখন এখানে ভর্তি হয়েছিল তখন দেখেছিল। সে তাকে বেশির ভাগ সময় কপোত হিসেবে দেখেছে। মজার বিষয় হল সেতার বোনের বাড়ি থেকে ফেরার সময় আবার ঐ লোকটিকে দেখল।কামাল কিছুটা গোয়েন্দা প্রকৃতির ছেলে। সে এর রহস্য বেরকরতেচাইল। সে প্রথমে কৌশল করে তার নাম জানল তারই কাছ থেকে।তার নাম বিধান ।পরে সে তার আসল ইতিহাস এক কর্মচারীর কাছ থেকে জানল।
সে জানতে পারল যে তার প্রেমিকার বিয়ে হয়ে গেছে।সেই মেয়েটির নাম ছিল রিয়া। বেকার ও দরিদ্র পরিবারের ছেলে হওয়াই রিয়া তাকে প্রত্যাখান করেছে।বিধান এখন সিজোফ্রেনিয়া রোগে আক্রান্ত।সে ঐ গেটের কাছে এসে রিয়াকে ফোন দিতো।রিয়া আসত।তাদের মাঝে সুখ দুঃখের অনেক কথা হতো ।
অনেক অপরাধের বিচার হলেও এই মন ভাঙা অপরাধটার বিচার হয়না।আর তাইতো বিধান হয়ে গেছে এক সিজোফ্রেনিয়া রোগী।সে আর পাবেনা জীবনে উজ্জ্বল নিশানা।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন