বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ৬ সেপ্টেম্বর ১৯৮২
গল্প/কবিতা: ১২টি

সমন্বিত স্কোর

১.৮৭

বিচারক স্কোরঃ ০.৪৪ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৪৩ / ৩.০

মেঘ বালিকা

কি যেন একটা জানুয়ারী ২০১৭

অপূর্ণতা

আমার স্বপ্ন ডিসেম্বর ২০১৬

ডিজিটাল ভালবাসা

বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী নভেম্বর ২০১৬

গল্প - ফাল্গুন (ফেব্রুয়ারী ২০১৬)

মোট ভোট ১৯ প্রাপ্ত পয়েন্ট ১.৮৭ ফিরে এসো অনিকেত

ফয়েজ উল্লাহ রবি
comment ১০  favorite ০  import_contacts ৩৪৫
ফিরে এসো অনিকেত।
আমি অনিকেত,গত ৬ দিন ধরে ঢাকায় আছি,ঢাকায় আত্নীয় যারা ছিল তাদের সাথে যোগাযোগ একেবারে নেই,গ্রামের বাড়ীটা সস্তায় বিক্রি করে দিয়েছিলাম।বন্ধুদের সাথেও কোন প্রকার যোগাযোগ রাখিনি গত বিশ বছর।তাই নিজ থেকে কাউকে জানাইওনি আমি একায় ব্যবসার কাজে ২০ বছর পর এলাম,ইচ্ছে ছিল না একেবারেই কিন্তু ১০০ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি তাই নিজেই আসতে হলো,আজ রাতের ফ্লাইটে কানাডা ফিরে যাব,জন্ম যদিও বাংলাদেশে ২০ বছর আগে পরিবারের সবাইকে নিয়ে কানাডায় সিপ্ট হয়ে গেছি।আজ সকালে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেখে মনে পড়ে গেল গ্রামের পাশের গঞ্জে প্রতি বছর ১৭ই ফাল্গুন মেলা বসে,মেলায় কতো আনন্দ করতাম সব বন্ধু মিলে,জানি না এখনও কি আর সেই বন্ধুদের পাওয়া যাবে,তবু মনে ইচ্ছে হলো মেলাটা ঘুরে দেখার কারও দেখা পেয়ে যেতেও পারি.রাতে ফিরবো এখন তো অনেক সময় আছে ঘুরে আসি গঞ্জের মেলায়।
কতোটা পরির্বতন হয়ে গেছে আগে এখানে কয়েকটা দোকান ছিল,আজ সুপার মার্কেট হয়ে গেছে বদলে গেছে সব কিছু পরিচিত কাউকে দেখতে পাচ্ছি না,হয়তো কাউকে পাবো না।পেছন থেকে কেউ কাঁধে হাত রাখল,পেছনে ফিরেই তুমি?অনামিকা তুমি?ভাবতেও পারছিনা তোমাকে দেখতে পাব,২০ বছর পর দেখা,কেমন আছো?
অনামিকাঃ-হ্যাঁ আমি ভাল আছি,তোমার কি খবর তুমি কেমন আছ ভাল তো?
হ্যাঁ ভাল,চল ঐ ক্যান্টিনে চা সাথে কথা হবে,মেলা দেখতে এলে বুঝি,আমিতো ব্যবসায় কাজে ঢাকায় এলাম আজ রাতেই চলে যাচ্ছি,কানাডায় পরিবারের সবাইকে নিয়ে খুব ভাল আছি।কি খাবে চা,কফি?
অনামিকাঃ-আমি ব্ল্যাক কপি ১ চামচ চিনি।
তুমি ব্ল্যাক কপি কবে থেকে পান করা শুরু করলে,তোমার তো একে বারে ভাল লাগতো না,আমাকে অনেক বলতে ব্ল্যাক কপি কি ভাল লাগে!আজ তুমিই ব্ল্যাক কপি পান করছ।তখন ১৮/১৯ বছর বয়সের একটি মেয়ে এসে হাজির,যেন ২০ বছর আগের অনামিকা!জিজ্ঞাসা করলো কে উনি?এই তোমার একজন আঙ্কেল,আঙ্কেল কেমন আছেন?ভাল তোমার নাম কি গো মা-মনি?আনিশা।সুন্দর নাম তো মা রেখেছে নাকি বাবায়।মা-বাবা দুজনে মিলে রেখেছে।অনামিকা অনেক সময় হয়ে গেল আমি চলি সন্ধ্যার আগে এয়ারপোর্টে পৌছতে হবে,রাস্তার যে অবস্থা ১ ঘণ্টার রাস্তা ৩ ঘণ্টা লাগে অনেক কিছুর পরির্বতন হয়েছে কিন্তু এই জ্যাম কমেনি একটুও,আজ চলে গেলে বেছে যাব এই সব ঝামেলা থেকে।এই বলে অনিকেত চলে গেল,অনামিকা পেছনে থেকে দেখে যাচ্ছে এই তো চোখের আড়াল হয়ে গেল ফের অনিকেত।আনিশা বলে উঠলো খালামনি উনিই কি অনিকেত?তুমি কখনো বলোনি তুমি কেন বিয়ে করনি।আম্মুও বলেনি,তোমার বান্ধবী পুজা আন্টি আমাকে সব বলেছে,আমার বাবার সাথে তোমার বিয়ে হওয়ার কথা ছিল,শেষ সময়ে তুমি বিয়ে করবে না বলে জিদ করলে তাই আমার আম্মুর সাথে আব্বুর বিয়ে হয়।এই অনিকেত আঙ্কেল এর জন্য তুমি প্রতি বছর ফাল্গুন মেলায় আস।বলেছ অনিকেত আঙ্কেলকে?
অনামিকাঃ-না বলা হয়নি কিছুই উনি জলদী চলে যাচ্ছে তাই।রাতের ফ্লাইটেই কানাডা চলে যাচ্ছে,
আনিশাঃ-উঠো খালামনি,চল ঢাকায় চল,সন্ধ্যার আগে আমাদের ঢাকায় পৌছতে হবে।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন