বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২৬ নভেম্বর ১৯৯৫
গল্প/কবিতা: ১৬টি

প্রাপ্ত পয়েন্ট

স্বপ্নে আসা সেই মেয়েটি

আমার স্বপ্ন ডিসেম্বর ২০১৬

প্রতীক্ষিত ভালোবাসা

আমার আমি অক্টোবর ২০১৬

মিষ্টি মিষ্টি স্বপ্নের ঘৃণ্য পরিণতি

ঘৃণা সেপ্টেম্বর ২০১৬

কবিতা - মমতা (মে ২০১৬)

মোট ভোট পুনরুদ্ধারে হারানো মমতা

ফাহিম আজমল রেম
comment ৫  favorite ০  import_contacts ১১৬
মমতার বাঁধন সে তো স্পর্শকাতর
একটু আঘাতে হয় ভেঙে চুরমার,
রূপ নেয় সাধারণ হৃদয় এক আস্ত পাথরে
যা ডুবেনা কোন বিশাল সাগরে,
ভেসে থাকে মনের শুকনো নদীতে
মাঝে মাঝে ফোটা ফোটা অশ্রুজল ফেলতে ফেলতে,
মনে পড়ে যায় শত হারানো স্বপ্নের কথা,
কত মায়ামমতায় বেঁধেছিলাম তখন
এক সাজানো সংসারের মালাগাঁথা।
টোনাটুনিতে মিলে ছিল হাসিখুশি ভরা এক রাজ্য,
করতে হলো নিমিষেই সেই অনাবিল সুখকে পরিত্যাজ্য।
চাওয়া আর পাওয়ার সেই অলঙ্ঘনীয় হিসেব
মিটলোনা আর সেই সখাসখীর হাজারো আক্ষেপ।
পুত্র চাই কন্যা চাই রাজ্য জুড়ে আলো চাই,
কিন্তু সেই জুটির মাঝে আজ পুরনো সুখ নাই,
অতিরিক্ত সুখ সাম্রাজ্য বসেছিল খুব চেঁপে
মায়ামমতার চাদরটি টেনে ছিড়ে,
আর আন্তরিকতার পরশকে গলা টিঁপে,
এক নির্মমতার প্রবেশ ঘটল রাজ্যে,
হিংসা জিঘাংসা ঢুকে পড়ল সাম্রাজ্যে।
যেখানে ছিল একদিন রানীর মায়ার আঁচল,
আজ সেখানে মমতাহীন সৈন্যসামন্তের দলবল।
রাজসদস্যরা যে আজ রক্তের নেশায় মাতোয়ারা,
শাসনের পরিধি বাড়াতে গিয়ে ফেলেছে হারিয়ে,
মায়ায় ঘেরা সেই লক্ষীচারা।
রাজা আজ অর্থের লোভে পাগল
রাণীর অন্তরের চেহারা তো আজ দুফোঁটা চোখের জল,
বন্ধ্যা সেই মায়াবিনী নিল রাজ্য থেকে বিদায়
মুছে দিলো সব মমতা ঘেরা মিষ্টিদুষ্টি স্মৃতি,
ত্যাগ করলো ফুলের মত সাজানো গুছানো সব অভিপ্রায়।
রাজার মুখে দেখতে সোনার হাসি
রাণী চলল সুদূর এক প্রবাসে,
নতুন এক ছোট্ট অতিথির আগমনের আশায়
মিলিয়ে গেল তার অন্তর্জালা এক অস্থির দীর্ঘশ্বাসে।
তবুও কি সুখ ফিরেছিল রাজদরবারে
কৃত্রিম এক পরীর সান্নিধ্য নিয়ে,
রাজা কি পেয়েছিল সন্তানপ্রাপ্তির সুখ?
সফল হয়েছিল কি তার নতুন বিয়ে?
সেই উত্তর দিতে গিয়ে
চোখের পানিও আজ আসে শুকিয়ে,
বংশধর পেয়েও যেন সেই স্বার্থপর রাজা
হারিয়ে ফেলেছিল উদার মমতাভরা সুখ,
তাই মিটিয়ে দিয়ে আবার সব হিসাব নিকাশ
খুজতে চললেন তিনি পুরনো রানীর মুখ।
পথের পর পথ পেরিয়ে যখন পেরুলেন এক জঙ্গল,
দেখতে পেলেন এক সাধারণ যুবতী
গেঁথে চলেছে মালায় হাসনাহেনা ফুল।
সেটি দেখে রাজা পারেনি আবেগ রুখতে
টেনে তুললেন সেই মায়াবী চেহারার পরীকে,
যার সাধারণ মুখের অবয়বে ফুটছিল মমতা,
মুগ্ধ করল যা সেই হিংস্র রাজাকে।
ক্ষমার কোন ভাষার না পেয়ে খোঁজ
হাতজোড় করে রাণীর কাছে
প্রতিশ্রুতি দিলো বাসবে ভালো রোজ।
পুরনো রাণী তখন ভাসলো নতুন সুখে
বলে ফেললো তার যত অজানা অভিপ্রায়,
জঙ্গলেই আজ করবে তারা সুখের ভোজ
খুজে নিবে তাদের সেই হারিয়ে যাওয়া
মমতায় বাধা সাম্রাজ্য পুনরুদ্ধারের উপায়।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন