বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১৮ অক্টোবর ১৯৭২
গল্প/কবিতা: ৩৫টি

সমন্বিত স্কোর

৪.৬৭

বিচারক স্কোরঃ ২.৪৫ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.২২ / ৩.০

দিনপঞ্জি

ব্যথা জানুয়ারী ২০১৫

স্বপ্নভাঙ্গার গান

উচ্ছ্বাস জুন ২০১৪

তুমি কখনো জানবে না...

ভালবাসি তোমায় ফেব্রুয়ারী ২০১৪

শুন্যতা (অক্টোবর ২০১৩)

মোট ভোট ৪৮ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৪.৬৭ বেলা শেষের অনুবাদ

সূর্য
comment ২৮  favorite ২  import_contacts ৭৭৪
বাঁশিটা তোলাই আছে, অনেকটা অযতনে, কোন একদিন
নলখাগড়ার বন ছুঁয়ে উঠে আসা সমীরণ, মোহন সুরে
মাতিয়ে যেত তোমার বুনো চুল... অস্ফুট আবেগ...
বাঁশির সুর ভেসে যেত বহুদূর... আরো দূরে, তোমার বুকে
মাল্লাহীন তরীর মতো সে সুর উড়িয়ে দিতাম, দিঘল রাতে
বেঁকে আসা তোমার মসৃণ শরীর, ওষ্ঠাধরে, কামিনীর ঘ্রাণ
ছড়িয়ে দিয়ে সে সুর ভেসে থাকতো তৃপ্তীতে
সেই সে বাঁশিটা, পড়ে আছে অযতনে, শুধু সে সুর...
বন্দী হয়েছে ইন্টারস্টেলার স্পেসে, না ফেরার আর্জিতে
কত সহজেই বাঁশি থেকে সুর, জীবন থেকে গতি
বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, অথচ তুমি আমি পাশাপাশি, স্পর্শ দূরত্বে
সুর নেই সেখানে ব্রাকেট বন্দী দীর্ঘশ্বাসের রাজত্ব শুধু
নিশ্চুপ শূন্যতায়ও ভেসে যায় ইলেক্ট্রো-ম্যাগনেটিক ওয়েভ
অথচ তুমি, আমি আর সুরের ট্রায়াঙ্গলে- প্রতিটি বাহু
এক্সট্রিম জেরো, আবেগও মুখ থুবড়ে পড়ে থাকে,
হিমেল কুয়াশা গ্রাস করে নেয় জীবন, বেঁচে থাকার আস্বাদ
শুধু আমি সাইক্লোস্টাইলে ভালবাসা ছেপে ছেপে
এখনো বেঁচে আছি বাঁশি আর সুরের মাঝামাঝি, অসীম শূন্যতায়...



আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন