বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৯
গল্প/কবিতা: ৩৪টি

বর্ণনাহীন প্রেম

প্রেম ফেব্রুয়ারী ২০১৭

অধরা

কি যেন একটা জানুয়ারী ২০১৭

পূর্ণতা , আসবে না?

আমার স্বপ্ন ডিসেম্বর ২০১৬

গল্প - প্রেম (ফেব্রুয়ারী ২০১৭)

মোট ভোট তমস গুহা ও ফেনায়িত প্রেম

শাহ আজিজ
comment ৩  favorite ০  import_contacts ৬৯
আমি কখনই এই বিদ্যুতায়িত ট্রলি বাসে চড়িনি বা এই রাস্তা ব্যাবহার করিনি । যাহোক বাওলি আমায় বলে দিয়েছে বলে সহজ হচ্ছে তাছাড়া আমি স্টেশনগুলোর নাম পড়তে পারি কিছুটা আর স্টপেজ গুনতে থাকি । একান্ত বিপদ হলে পাশের কাউকে জিজ্ঞাসা করি। ছুটির দিন সকাল বলে ভিড় নেই । আকাঙ্ক্ষিত বেইহাই পার্কে পৌঁছে গেলাম। আমার জন্য অপেক্ষায় থাকা বাওলিকে দেখে উত্তেজনা অনুভব করলাম। পার্কে ঢুকে গেলাম । লেকে বোটের জন্য বিশাল লাইন দেখে বাদ দিলাম বোটে চড়ার প্ল্যান। ব্রিজের দুদিকে পদ্ম ফুলের সমাহারে মনটা ফুরফুর করে উঠল।
পার্কের মাঝখানে একটা বৌদ্ধ মন্দির আছে । বিশাল কৃত্রিম পাহাড় বানিয়ে রাজারা এই মন্দির বানিয়েছিল । আমার রঙ ইউরোপীয়দের মত সাদা নয় বলে দৃষ্টি আকর্ষণ করছি না , তাতে সুবিধাই হয়েছে টিকটিকি পুলিশের নজর এড়ানোর । আমরা নির্ভয়ে দুজন দুজনার হাত ধরে লেক পাড়ের দেওয়াল ঘেঁষে হাঁটছি । বাওলি আশ্বাস দিল নজরদারি বিকেলে শুরু হয় । ক্রমশ আমরা ছোট ছোট গাছের নিচ দিয়ে উঠছি ওপরের দিকে । অসমতল পাথর আর মাটির পাহাড় । এই জায়গাতে শুধুই খবরের কাগজ দেখতে পাচ্ছি তাও দুমড়ানো মোচড়ানো । আমার সতর্ক কৌতূহলী দৃষ্টি দেখে বাওলি বলল একদিন সন্ধ্যার পর এসো এবং দেখে যেও চীনের যৌবন বিপ্লব । প্রেমের সব বাধন এখানে উন্মুক্ত হয়, না রাষ্ট্র না সমাজ কাউকে কেয়ার করেনা এই বিপ্লবী যুবক যুবতীরা।
পুলিশ আসেনা এখানে?
আসে, টুপি খুলে সেও মত্ত হয় প্রেম সাধনায় ।
বাহ বাহ , কি শোনালে । মদের ছোট খালি বোতল দেখছি ।
হ্যা, ছেলে মেয়েদের অনেকেই খায় এক নেশার সাথে আরেকটি মেশাতে । আমরাও একদিন আসব বিয়ার সাথে নিয়ে । বাওলির চোখে উত্তেজনার দৃষ্টি ।
আমি নিশ্চুপ হাসছি । চীনে বিদেশি- চীনা যুবতীদের প্রেমের সবচে বড় বাধা পুলিশ ।

আমি বেশ রোমাঞ্চিত হচ্ছিলাম না দেখা সন্ধ্যা রাতের সম্ভাব্য দৃশ্যপট মনে একে।
পাহাড়ের গুহামুখে দাড়িয়ে আমরা, ঘেমে গেছি দুজনেই ।
এই পথ বিভিন্ন দিক দিয়ে বেরিয়েছে ।
আমি কিছুটা বিচলিত আর একটু টেনশন হচ্ছে। এখান থেকে লেক দেখা যায়না শুধু আকাশ ছাড়া । আমার বিচলিত ভাবকে ছিন্ন করে বাওলি হাত টেনে গুহায় ঢুকল । খুব চাপা , বড়জোর একজন সহজেই চলাফেরা করতে পারে। ক্রমশ ঘন অন্ধকার আমাকে দাড়াতে বাধ্য করল এবং সাথে থাকা ম্যাচ জ্বালিয়ে নিশ্চিত হলাম গুহাটি কেমন। সিমেন্ট দিয়ে অসমতল প্রলেপে গুহা ভাব এনেছে। কাঠি নিভে গেল এবং মনে হল অন্ধকার আরও জেকে বসেছে। আমরা ধীরলয়ে হাঁটছি ।
আবারো ম্যাচ কাঠি জ্বালালাম । এবার বাওলি ঝটকায় ম্যাচ কাঠি ফেলে দিয়ে শক্ত করে আমার কাঁধ ধরে টেনে নিলো ওর তপ্ত দুঠোটের মাঝে আমার ঠোটখানি। আমিও সক্রিয় হলাম এবং একসমুদ্দুরের ফেনায়িত ঢেউয়ের প্রেমময় আখ্যানে তমসা থেকে তমসাঘন জীবনে হারিয়ে গেলাম।
প্রেম স্বর্গীয় , তাই মনে হয় সর্বদা ।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন